Monday, January 21, 2019

পাপ

পাপ



pendrive
-হ্যালো! তপনদা!(ফোনের ওপারে)
-হ্যা বলো শুভ্রজিৎ! কী হয়েছে তোমার? গলাটা এরকম শোনাচ্ছে কেন?(এপারে)
-তাড়াতাড়ি নিউজ চ্যানেলটা অন কর| সেবার মাঝেরহাটের ব্রীজটাতে নিম্নমানের বালি-সিমেন্ট দিয়ে কাজ করালে সেটা ভেঙে পরেছে গো|
-অ্যাঁ বলো কী? হতাহতের কোনো খবর আছে?
-এখনো পর্যন্ত জনা পাঁচেকের কথা শোনা যাচ্ছে| টেষ্ট করলেই তো বোঝা যাবে ব্রিজের মালমশলায় দুনম্বরি ছিল|
-আরে ছার তো! এসব কিছুই হবে না| বরং আবার অর্ডার আসবে আর কিছু মাল কামানো যাবে|

শেষ কথাটা বলে হাঃ হাঃ করে হেসে উঠে শুভ্রজিৎ সান্যালের ফোন কেটে দিলেন সিনিয়র ইঞ্জিনিয়ার তপন বাগচী|

"কী গো এত হাসছ কেন?", হাসির আওয়াজ শুনে এসে তপন বাগচীকে প্রশ্ন করলেন তার স্ত্রী জয়া|
-"আরে, তেমন কিছুনা| টিভিটা অন করতো| শুভ্র বলল মাঝেরহাটের ব্রীজটা নাকি ভেঙে পরেছে| আর জনা পাঁচেক মানুষ মারা গেছে|"
-বলো কী? সেটা তো তোমরাই বানিয়েছিলে? এতো গুলো মানুষ মারা গেছে আর তুমি হাসছ?
-"হাসব না গিন্নি? ঘরে লক্ষী আসবে যে| যাও তুমি একটা নিউজ চ্যানেল অন করো দেখি|"
-" এ...কি..."নিউজ চ্যানেল অন করে একটা নীল শার্ট পরা ছেলের দিকে চোখ যাওয়া মাত্রই আর্তনাদ করে উঠলেন  জয়া দেবী|
-"কী হলো?"
-"দেখ বাবুর মতো জামা পড়া একটা ছেলে| আজ আমার বাবুও এই রং-এর শার্ট পরে বেড়িয়েছে.... ও এমন করে শুয়ে আছে কেন?" বলতে বলতেই ধপ করে বসে গেলেন জয়া দেবী|
-" উফ! ফালতু টেনশন করো না তো| আমাদের বাবু ছাড়াও অনেক লোকে নীল শার্ট পড়ে বাইরে যায়| তুমি একটু বোসো আমি বাবুকে ফোন করছি|"
পরপর দুবার রিং করলেন তপন বাবু| ওপার থেকে আওয়াজ ভেসে এল-" আপনি যে নাম্বারে কল করেছেন তিনি আপনার কলটি গ্রহন করতে সক্ষম নন|" একটু একটু করে হাতের পায়ের তালু ঘামছিল তপন বাবুর| হয়ত ব্যাস্ত আছে বাবু,মনে মনে নিজেকে সান্তনা দিয়ে তৃতীয় বার রিং করলেন তিনি| ওপার থেকে গুরুগম্ভীর আওয়াজে কোন ব্যাক্তি বললেন, "হ্যালো! আমি ইন্সপেক্টর মনোজিত রয়| মাঝেরহাটের স্পটে এক ডেডবডির পাশে পাওয়া গেছে ফোনটি| আপনারা তাড়াতাড়ি স্পটে আসুন|" স্তব্ধ হয়ে শুনলেন তপন বাগচী|
তার হার্টবিটটা যেন বলে উঠল," পাপ বাপকেও ছাড়ে না|"

(সমাপ্ত)                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                নীলাঞ্জনা

0 comments: